মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা এবং রাজনীতিবিদ হিলারি ক্লিনটনের নিউইয়র্কের বাড়িতে বোমাসদৃশ বস্তু পাওয়া গেছে। সেইসঙ্গে দেশটির প্রভাবশালী সংবাদমাধ্যম ক্যাবল নেটওয়ার্ক নিউজের (সিএনএন) নিউইয়র্ক ব্যুরো অফিসেও ওই বস্তুটি পাওয়া গেছে বলে দেশটির সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা নিশ্চিত করেছেন।

তবে কে বা কারা এই ডিভাইস পাঠিয়েছে তা নিশ্চিত হতে পারেনি দেশটির গোয়েন্দারা। বুধবার (২৪ অক্টোবর) ওইসব ব্যক্তি এবং স্থানে ডাকযোগে বোমাসদৃশ বস্তুটি পাঠানো হয় বলে স্থানীয় সংবাদমাধ্যম উল্লেখ করে।

এর আগে, সম্প্রতি মার্কিন মানবহিতৈষী ও বিলিওনেয়ার জর্জ সোরসের বাড়িতেও একটি বোমা পাওয়া যায়। সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা বলছেন, ক্লিনটনের বাড়িতে যে বিস্ফোরক যন্ত্রটি পাওয়া গেছে সেটি সোরসের বাড়িতে পাওয়া বোমার অনুরূপ। দু’টি বাসভবনই ওয়েসচেস্টার কাউন্টিতে অবস্থিত।

মার্কিন আইন প্রয়োগকারী সংস্থা সিক্রেট সার্ভিস এক বিবৃতিতে বলেছে, স্থানীয় সময় মঙ্গলবার গভীর রাতে প্রথম ডিভাইস প্যাকেজ হিলারি ক্লিনটনের বাড়ি থেকে উদ্ধার করা হয়। বুধবার ভোরে ওয়াশিংটনে সাবেক প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার বাড়ি থেকে দ্বিতীয় বিস্ফোরক ডিভাইস জব্দ করে করা হয়। তবে নিরাপত্তারক্ষীরা ঝুঁকির কথা চিন্তা করে তা গ্রহণ করেননি। উল্টো তাঁরা ওই প্যাকেজ দেখে সন্দেহ করেন।

এ বিষয়ে ক্লিনটনের মুখপাত্র বিস্তারিত কিছু বলতে রাজি হননি। তিনি সিক্রেট সার্ভিসের সঙ্গে যোগাযোগ করার পরামর্শ দেন সাংবাদিকদের।

মার্কিন কেন্দ্রীয় তদন্ত সংস্থা এফবিআই জানিয়েছে, এ ঘটনা সম্পর্কে তারা অবগত। বিষয়টি নিয়ে তারা কাজ শুরু করছে। তদন্তের বিষয়ে সংশ্লিষ্টদের সহায়তা দিচ্ছে।

হোয়াইট হাউসের মুখপাত্র সারাহ স্যান্ডার্স এ ঘটনার নিন্দা জানিয়েছেন। তিনি বলেন, এটা স্বনামধন্য ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে জঘন্য হামলার চেষ্টা।

যুক্তরাষ্ট্রের সিক্রেট সার্ভিস বলছে, সাবেক প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা এবং সাবেক ফার্স্ট লেডি ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিলারি ক্লিন্টনের বাড়ির ঠিকানায় পাঠানো সন্দেহজনক বিস্ফোরক প্যাকেট জব্দ করা হয়েছে। ডাকযোগে আসা চিঠির নিয়মিত যাচাই-বাছাইয়ের সময় এই প্যাকেটগুলো বিস্ফোরক হতে পারে বলে সন্দেহ করা হয। পরে সে অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হয়।

এ ব্যাপারে এখন পূর্ণাঙ্গ তদন্ত শুরু হয়েছে।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *